কুষ্টিয়ায় এবার ২০ তম বাল্যবিবাহ ভন্ডুল করে দিলেন ইবি থানার ওসি রতন শেখ।

 

 

 

সরদার নওরোজ কবির, বিশেষ প্রতিনিধিঃঃ শুধু বাল্যবিবাহ নয়! আইনি পদক্ষেপে আপোষহীন কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি)থানার ওসি রতন শেখ। তাই তিনি ঐ থানায় দায়িত্বভার গ্রহনের পর এ পয্যন্ত মোট ২০টি বাল্যবিবাহ রুখে দিয়েছেন। প্রয়োজনে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন বর, অভিভাবক, এমন কি বিয়ে পড়ানো কাজীদেরকেও। তাই এবার বরের সাথে খোদ পাজি কাজীকেই মামার বাড়ি (জেল খানা) পাঠালেন।

 

 

 

 

 

 

এবার ২০ তম বাল্যবিবাহ ভন্ডুল করে দিলেন ইবি থানার ওসি রতন শেখ। তারপর ওসি ইবি থানা নামের ফেসবুক স্ট্যাটাসে ১৬ আক্টোবর রাত ৮:৪২ মিনিটের সময় ছড়ার মতন করে মজার একটি পোস্ট করলেন। হতে পারে এটি তার ২০ তম বাল্যবিবাহ ভন্ডুল করা ছড়া! সেই হাঁসির ছড়ার ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলোঃ ওসি রতন শেখ তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন।

“আবারো বাল্যে বিবাহ বন্ধ হলো:
“পালাবি কোথায়””?

“”২০ তম বাল্যবিবাহ ভন্ডুল করা হলো””
বরের সাথে এবার কাজী আটক
কাজী বিয়ে পড়াচ্ছেন, মেয়ের আসল বয়স (১২)
৮ম Class এর ছাত্রী, ইবি থানাধীন, হালসা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত মেধাবী ছাত্রী। কিন্তু কাজীর বিয়ের রেজিষ্ট্রার মোতাবেক কনের বয়স (১৮) লিখে বিয়ে পড়ানোর আয়োজন করছে।

 

 

 

 

 

 

এই সংবাদের পর আগের নিয়মেরর মতন কনের বিয়ে বাড়ী, ডাবিরা ভিটায় হাজির। এবার “পাজি” কাজী আটক, বর আটক অন্যরা পালিয়ে।ওদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্হা, বাসর ঘর বাদে ১ মাসের জেল।

কাজী ও বরের ১ মাসের জেল। অতপর তারা এখন কুষ্টিয়া জেলখানায়। (বর) মারুফ শেখ (১৮) পিতা আঃ কুদ্দুস
(কাজী) সিদ্দিকুর রহমান(৪০)পিং মৃঃ আঃ কুদ্দুস
উভয় সাং গোবিন্দ পুর, থানা মিররপুর

 

 

 

 

 

(বালিকা বধু) জোৎনী খাতুন ছদ্মনাম (১২)
পিতাঃ জাহিদুল ইসলাম সাং-ডাবিরা ভিটা, থানা ইবি,
উভয় জেলা কুষ্টিয়া। মেয়েটার কান্নায় পরিবেশ ভারীহয়ে ওঠে। আমাদের কান্না আসলেও কাজী, কন্যার পিতার কান্না
আসেনা। বিয়ে ভেংগে আবার স্কুলে যার পথ তৈরী করে দিলাম। মেয়েটির মুখে বিজয়ের হাসি দেখলাম।##

Categories: খুলনা,জাতীয়,টপ নিউজ,প্রধান নিউজ,লাইফস্টাইল