ভালবাসার টানে চাচার সাথে ঘর ছাড়ল অপ্রাপ্ত ভাতিজী ! থানায় অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায়  অপ্রাপ্ত বয়স্ক  এক স্কুলছাত্রী কে প্ররোচিত করে কোর্ট ম্যারেজ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্কুল ছাত্রী হেপী আক্তার (১৬) পৌর শহরের দেবগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়  থেকে (এসএসসি) পরিক্ষার্থী ছিল। সে মোগড়া উমেদপুর গ্রামের রুহল আমিন মিয়ার মেয়ে। নাবালিকা কন্যা কে ফিরে পাওয়ার আশায় আখাউড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন ছাত্রীর পিতা।

অভিযুক্ত বর মো: জাহেদূল চৌধুরী (১৭) উপজেলার মোগড়া ইউপির উমেদ পুর গ্রামের মোঃ মোজাম্মেল চৌধুরীর পুত্র এবং তারা দুজনে একই এলাকার বাসিন্দা এবং সম্পর্কে চাচা-ভাতিজি। কয়েকদিন আগে তারা পালিয়ে গিয়ে কোর্টে গিয়ে বিয়ে করে কিন্তু এই দুই অপ্রাপ্ত বয়স্কদের বিয়ের ব্যাপারটি মেনে নিতে পারছেন না মেয়ের পরিবার। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।হেপীর পরিবার বলেন,  কিভাবে কি হল কিছুই বুঝতেছিনা, কারন আমাদের মেয়ে এসএসসি রেজিস্টেশন অনুযায়ী তার বয়স ১৬ বছর ১ মাস চলে এমতাবস্থায় অপ্রাপ্ত একটি শিশুকে কিভাবে কোর্টে এফিডেফিট করে ম্যারেজ করানো হয় ? তার তো পড়াশুনাই শেষ হয়নি। তারা  আরও বলেন, ছেলেপক্ষ পরিকল্পিত ভাবে আমাদের মেয়েকে বিয়ে করতে বাধ্য করেছে।  আমরা  মেয়েকে ফেরত পেতে ছেলের অভিবাবক কে সামাজিকভাবে অনেক চেষ্টা করেছি। কিন্তু সমাধানের ব্যাপারে  তারা কোন পাত্তায় দেয়নি তারা।তাই নিরুপায় হয়ে  আমি  আইনের দ্বারস্থ হয়েছি।
আখাউড়া থানার ওসি (তদন্ত) মো: আরিফুল আমিন বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি আমরা তদন্ত করছি।  মেয়ে-ছেলে  দূজন কে উদ্ধার করতে পারলে পরবর্তী আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।