মনপুরায় টাকার বিনিময় ১৫ হরিণ শিকারীকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ

এমডি আবু জাফর, বিশেষ প্রতিনিধিঃঃ ভোলার মনপুরায় ১৫ হরিণ শিকারীকে দেড় লক্ষ টাকার বিনিময় ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বনবিভাগের বিরুদ্ধে। এই ঘটনা জানাজানির পর স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩ টায় উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের চরফৈজুদ্দিনের রিজিরখাল এলাকায় বনবিভাগের অভিযান পরিচালনার সময় এই ঘটনা ঘটে। স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, হাজিরহাট বিট কর্মকর্তার নের্তৃত্বে একদল বনকর্মী মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩ টায় চরফৈজুদ্দিন গ্রামের রিজির খাল সংলগ্ন অভিযান পরিচালনা করে।

এই সময় সিরাজ ও নাজিমের নের্তৃত্বে অপর হরিণ শিকারীরা জমিরশাহ চর থেকে হরিণ শিকার করে আসছিল। সে সময় তাদের থেকে জবাইকৃত হরিণের মাংস ও হরিণ ধরা ছটকা, জালসহ আটক করে বনবিভাগ। পরে ওই রাতেই স্থানীয় এক প্রভাবশালী নেতার হস্থক্ষেপে জন প্রতি ১০ হাজার টাকায় বনবিভাগের সাথে রফাদফা হয়। তবে নাম না প্রকাশে শর্তে দুই প্রভাবশালী নেতা এই প্রতিবেদকের কাছে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। এব্যাপারে হাজিরহাট বিট কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩ টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রিজিরখাল এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে হরিণ শিকারের ব্যবহৃত জাল, বট ও ছটকা আটক করা হয়।

১৫ হরিণ শিকারীকে দেড় লক্ষ টাকার বিনিময় ছেড়ে দেওয়ার ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত করে ফাসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি বলে তিনি দাবী করেন।
স্থানীয়দের আরো অভিযোগ করে বলেন, বনবিভাগের ছত্রছায়ায় একাধিক হরিণ শিকারীরা বিভিন্ন বন থেকে হরিণ শিকার করছে। এই সমস্ত শিকারীরা প্রায়ই বিভিন্ন চর থেকে হরিণ শিকার করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করে।

তবে এই সমস্ত শিকারীরা ধরা পড়লে স্থানীয় প্রভাবশালী নেতার হস্তক্ষপে টাকার বিনিময় ছেড়ে দেয় বনবিভাগ। অসাধু বনবিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কারনে মনপুরায় হরিণের সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা। এব্যাপারে মনপুরা বনবিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা সুকুমার চন্দ্র জানান, হরিণের শিকারীদের ধরতে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। তবে কাউকে আটক করে ছেড়ে দেওয়ার ব্যাপারে কিছুই জানেন না তিনি।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ হাওলাদার কে অবহিত করা হলে তিনি জানান, খোঁজ-খবর নিয়ে এব্যাপারে বনবিভাগের দায়িতপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসা করা হবে।##