দেবিদ্বারে নাশকতার অভিযোগে বিএনপির ২৯ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা : তিনজনকে জেল হাজতে প্রেরণ

দেবিদ্বারে নাশকতার অভিযোগে বিএনপির ২৯ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা : তিনজনকে জেল হাজতে প্রেরণ

মোঃ আক্তার হোসেনঃ দেবিদ্বারে নাশকতার অভিযোগে আটক বিএনপির তিন নেতাকে রোববার জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলা রাজামেহার ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মোঃ আব্দুর রউফ খান, এলাহাবাদ ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক কৌশিক আহম্মদ হুমায়ুন ও গুনাইঘর দক্ষিন ইউনিয়ন যুবদলের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ও ইউপি সদস্য আশিকুর রহমান মুন্নাকে আটক করে পুলিশ এবং রাতেই আটক তিন নেতাসহ ২৯ জনকে আসামী করে জননিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেন।
পুলিশ জানায়, আগামী ৮ফেব্রুয়ারী জিয়া আরফানেজ ট্রাষ্ট দূর্নীতি মামলার আসামী সাবেক প্রধান মন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও বিএনপি নেতা তারেক রহমানের সহ অন্যান্য আসামীদের বিরুদ্ধে রায়ের পরবর্তী প্রস্তুতি মূলক গোপন বৈঠক করার সংবাদে ভিতিত্তে উপজেলার জাফরগঞ্জ ইউনিয়নের কালিকাপুর বাসষ্ট্যাশন সংলগ্ন ফতেহাবাদ ইউনিয়ন যুবদল সভাপতি কামাল হোসেন’র রড-সিমেন্টের দোকানে প্রায় ১৫/২০জন বিএনপি’র নেতা-কর্মী গোপন বৈঠক করছিল। এসময় অভিযান চালিয়ে দেবিদ্বার উপজেলা রাজামেহার ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মোঃ আব্দুর রউফ খান, এলাহাবাদ ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক কৌশিক আহম্মদ হুমায়ুন ও গুনাইঘর দক্ষিন ইউনিয়ন যুবদলের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ও ইউপি সদস্য আশিকুর রহমান মুন্নাকে গ্রেফতার করতে পারলেও অন্যরা পালিয়ে যায়। ওই ঘটনায় থানার উপ-পরিদর্শক(এস,আই) খাইরুল আলম বাদী হয়ে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষতা আইনে ১৫’র ৩ ধারায় ৯ জন নামীয় ও অজ্ঞাতনামা আরো ১৫/২০জন সহ ২৯ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
অপর দিকে বিএনপি উপজেলা সভাপতি এডভোকেট ফরিদ আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ গিয়াস উদ্দিন জানান, রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় ‘জিয়া আরফানেজ ট্রাষ্ট দূর্নীতি মামলা’ নামে একটি মিথ্যা সাজানো মামলার রায়কে কেন্দ্র করে সারা দেশে গ্রেফতার অভিযানের অংশ হিসেবেই দেবিদ্বারের ৩জন জনপ্রিয় নেতাকে গ্রেফতার করে মিথ্যা মামলায় ্আসামী করা হয়েছে। সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রনোদীত হয়েই এ মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়। গ্রেফতার হওয়া উপজেলা রাজামেহার ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মোঃ আব্দুর রউফ খান রাজামেহার মসজিদ থেকে মাগরীবের নামজ পড়ে বের হওয়ার সময় তাকে গ্রেফতার করেন। এলাহাবাদ ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক কৌশিক আহম্মদ হুমায়ুন এলাহাবাদ বাজারে চা’ দোকানে বসা অবস্থায় উপস্থিত লোকজনের সামনে থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়, অপরদিকে গুনাইঘর দক্ষিন ইউনিয়ন যুবদলের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ও ইউপি সদস্য আশিকুর রহমান মুন্না রাতে ঘুমাচ্ছিলেন, এসময় পুলিশ তাকে ঘুম থেকে তুলে এনে গ্রেফতার দেখিয়েছে। তাছাড়া যেখানে নাশকতার মিটিং দেখানো হয়েছে ওই দোকান মালিক আনিসুর রহমান। ফতেহাবাদ ইউনিয়ন যুবদল সভাপতি কামাল হোসেন নয়। কামাল হোসেন ওমরা হজ্ব পালন শেষে কুমিল্লার বাসায় অবস্থান করছেন। অথচ জননিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলাটি সম্পূর্ণই মিথ্যা। এখন এমন পরিস্থিতি যেন সাভাবিক রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনা থাক দূরের কথা এলাকার বাহিরে লোকিয়ে থাকারও কোন উপায় নেই।
এ ব্যপারে মামলা দতন্তকারী কর্মকর্তা দেবিদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক(এস,আই) সাইদুর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীরা নাশকতার উদ্দেশ্যে গোপন বৈঠক করার প্রস্তুতির গোপন সংবাদে ঘটনাস্থল থেকে ৩জনকে গ্রেফতার করা হয়। রোববার দুপুরে গ্রেফতারকৃত ৩ আসামীকে কুমিল্লা কোর্ট হাজতে চালান করা হয়েছে।