লক্ষ্মীপুরে কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প এখন হুমকির মুখে

লক্ষ্মীপুরে কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প এখন হুমকির মুখে

কিশোর কুমার দত্ত, লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুরে অনিয়ম, অব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া প্রায় এক কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প এখন হুমকির মুখে পড়েছে। স্থানীয় চরভূতা হাতেম আলী পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির নামে এলজিইডি কর্তৃক বরাদ্ধকৃত উপ-প্রকল্পটির এমন অবস্থা। সমিতির মেয়াদ উর্ত্তিন্ন কমিটিতে কার্যক্রমে স্থবিরতা, প্রকৃত উপকারভোগীদের সদস্য না করাসহ নানা অভিযোগেই প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কাল শেষ হয়ে গেছে। বর্তমানে ৪০ শতাংশ কাজ শেষ করা হলেও একটি চক্র সংশ্লিষ্ট অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে সরকারি টাকা লোপাটের পাঁয়তারা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ, চরভূতা, চরমনসা, চর উভূতি এই চারটি গ্রামকে কর্ম এলাকা ধরে গঠন করা হয় চরভূতা হাতেম আলী পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি। উন্নত পানি ব্যবস্থাপনা ও কৃষিজ জমির উৎপাদন বৃদ্ধিসহ সমিতির সদস্যদের আর্থসামাজিক উন্নয়নের লক্ষে একটি উপ-প্রকল্প অনুমোদন করে এলজিইডি। ১২ লাখ টাকায় সমিতির ঘর নির্মাণ, কৃষি জমিতে পানি সেচের জন্য ১১ টি ড্রেন নির্মাণ, খাল খনন ও আশে পাশের গাছ কাটা ও ক্ষতিপূরনের ৮লাখ টাকাসহ এসব উন্নয়ন কাজে বরাদ্ধ হয় প্রায় এক কোটি টাকা। প্রকল্পটির বাস্তবায়নকাল ধরা হয় ২০১৪ সাল থেকে ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। বর্তমানে প্রকল্পের ৪০ শতাংশ কাজও শেষ হয়নি।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, প্রকল্প এলাকার প্রকৃত উপকারভোগী কৃষকদের সমিতির সদস্য না করে অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সমিতি গঠন করা হয়েছে। সমিতির সভাপতি মো. শাহ আলম ও সাধারণ সম্পাদক মো. মাকছুদ স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে তাদের স্বজনদের নামে বেনামে সমিতির সদস্য করেছেন বলে অভিযোগ করেন তারা। তারা আরো বলেন, প্রকল্প এলাকার খাল পাশের গাছ পালা কাটা যাওয়ায় ক্ষতিপূরণের জন্য সরকারি বরাদ্ধকৃত কোন টাকা পায়নি স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্থরা। সমিতির মেয়াদ উর্ত্তিন্ন হওয়ার পরও কোন নির্বাচন না দিয়ে ক্ষতিপূরণের ৮ লাখ টাকা আত্মসাত করেছেন কমিটির লোকজন।

এ ব্যাপারে জানতে সমিতির কার্যালয়ে গিয়ে তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি। অফিসে তালা ঝুলতে দেখা গেছে। মুঠোফোনে চেষ্টা করেও তাদের বক্তব্য জানা যায়নি।

এদিকে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্ট অফিসের অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে এখন প্রকল্পে বরাদ্ধকৃত সরকারি টাকা লোপাটের পাঁয়তারা করছে বলেও অভিযোগ করেন স্থানীয়রা।

জানতে চাইলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল হাসান রনি বলেন, সমবায় নীতিমালা অনুযায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে, কিছু বাদ পড়া সদস্য ও মেয়াদ উর্ত্তিন্ন কমিটির কথা স্বীকার করেন চেয়ারম্যান।

এদিকে লক্ষ্মীপুর এলজিইডি কার্যালয়ের সোসিও ইকোনোমিক কর্মকর্তা সৈয়দ সালেহ ইসলাম অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনাসহ প্রকল্প, বরাদ্ধ সম্পর্কে সু নির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেননি, তবে প্রকল্পটি চলমান রয়েছে বলে জানান তিনি।

অন্যদিকে জেলা সমবায় কর্মকর্তা মেহের উদ্দিন আহমেদ বলেন, চরভূতা হাতেম আলী পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি মেয়দ উর্ত্তিন্ন, আর ওই কমিটি কোন অডিট না করায় তা বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ওই কমিটির কোন কার্যক্রম বৈধ নয় জানিয়ে জেলায় এ ধরণের ১৮টি সমিতির রেজিস্ট্রেশন বাতিল করা হবে বলে জানান তিনি।

Categories: চট্টগ্রাম

Tags: