কবি বিদ্যুৎ ভৌমিকের কবিতা   

এমডি আবু জাফর, বিশেষ প্রতিনিধিঃঃ একটা কবিতা অনেকটা-ই জীবন চরিত্রের রূপরেখা , এবং আগামী দিনের অন্তর-মনের দলিল । যেটা সারা জীবনের কথামৃত । এটাই কবির আত্ম-গৌরবের সহজ দর্পণ । কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিকের কবিতা মানেই জীবনধর্মী চেতনার প্রকাশ । এটা দুই বাংলার পাঠক সমাজ উপলব্ধি করেন  আদিত্য বসু সাংবাদিক

দুই বাংলার ভালোবাসার কবি বিদ্যু ভৌমিক এর নাম না করা কবিতা  অপার মরণ এবং জীবন কথা
*********************************************************************************
                                               শেষ মেশ আমিও এক শতকের মরণ দেখে এলাম
                        কতকালের  আয়নায় ইহকালের মৃত্যু দোষ গুলো
                                  আমাকে জীবনের হিসাব নিতে বলেছে ;
                                                 সেটা এই চশমার ভেতর থেকে                                                                                        দেখছিলাম একা একা  ।
               এভাবে জটিল কোন পথে পা থামে কিন্তু মন থামে না
                               একবার অতীত  পীড়নে পুড়েছি নিজের মতো
                                     তবু মরে যাবার আগে বূঝ-নি ; মরার পর দহনের জ্বালা কতটা পিড়া দিতে পারে                                        এভাবে অচল পথে কতো কথার মানে খুঁজি বাতাস আঁচলে ।
                        এবার সেই মরণ আমাকেই দায়ী করে গেছে ।
                              আজ এঈ কথা না বলাই ভাল ,
                                      তবু বলতে হয় না বলার মতো
               এতকাল নিজের মতো উল্টো পথে চলেছি আমাকে নিয়ে । ভেতর থেকে মরণ
                        হেসেছে কথা হীন ভাষায় ।
                              এই যে শরীর নিছক পুড়ে জেটে পারে ; সেটা আমিও জানতাম
                                  তবু ভিন্ন এক ছায়া রোজ রাতে আমাকে ভয় দেখায়
                                         প্রথম মরণের কথা বলেছি ; কেউ শোনেনি সেই কথা                                                                                                        মনের কাছে এসে জানতে চেয়েছি ; তুমি কেমন আছো হে মরণ ——
                           এরপর বাতাসে মন পেতে দরজা দিয়েছি হাঁট করে খুলে  ।।                                                                                         ********************************************************