সাপাহারে আম কেনা-বেচার উৎসবে চলছে আড়ৎ মেরামতের শেষ সময়ের প্রস্তুতি

গোলাপ খন্দকার সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর সাপাহারে ফলের রাজা আম ফল যেন প্রধান ফসলে রুপ নিয়েছে ফলের রাজা আম তাই দেশের ঠাঁঠাঁ বরেন্দ্র হিসেবে খ্যাত নওগাঁর সাপাহারের উৎপাদিত আম কেনা-বেচার জন্য আড়ৎ ঘর গুলো মেরামতের কাজ চলছে।উপজেলায় এখন আমের মৌসুম মধুমাস জ্যৈষ্ঠ। মধুমাসের রসালো ফল আম বাজারে আসার অপেক্ষা মাত্র কয়েক দিনের মধ্যে বাজারে কাঁচা, পাকা,ও আধাপাকা আমে বাজারের ফলের দোকান ঘর ও আড়ৎ ঘর গুলো টইটুম্বুর হয়ে থাকবে চোখে পড়ার মতো অবস্থা।এবং শেষ সময়ে কৃষকেরা নাওয়া খাওয়া ছেড়ে দিয়ে আমের বাগানে বাগানে আমের পরিচর্যা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছে তাদের এক বুক আশা নিয়ে তৈরি করা বাগান গুলোতে।
সাপাহার উপজেলার চারিদিকে ঝুলছে বিভিন্ন জাতের আম গোপালভোগ,ফজলী, লেংড়া,লক্ষনা, খিরশাপাতি, ও আ¤্রপলি (রুপালী),হাড়িভাঙ্গা,বারি ফোর। পথের পাশেই দৃষ্টি দিলেই থোকায় থোকায় সবুজ গাছে দুলছে আম,নজর কাড়বে সবার।এ অঞ্চলের আম বাহারি রসালো ,মিষ্টি ও সুস্বাদু। এখন গুটি জাতের আম বাজারে আসার অপেক্ষায় দিন গুনছে সরকারি নিয়ম অনুযায়ী মে মাসের ২০ তারিখ থেকে আম সংগ্রহ করার কথা থাকায় এই আম গুলো কেনার জন্য বিভিন্ন এলাকা হতে বড় বড় ব্যবসায়ীরা সাপাহারে অবস্থান করতেছে কিছু দিনের মধ্যে আম কেনা-বেচার উৎসব চলবে কৃষকের মুখে ফুটবে হাঁসি। ধানের দাম বাজারে ভাল না থাকায় এ এলাকার কৃষকগণ ধান চাষ বাদ দিয়ে অধিক লাভের আশায় আম চাষে ঝুকে পড়েছে। গাছ ভরা আম নিয়ে চাষিদের মনে উঁকি দিচ্ছে ভাল ফলনের পাশাপাশি অধিক লাভবানের আশা ।
অতীতে দেশের সকলেই দেশের চাপাই নবাবগঞ্জ জেলাকে আমের রাজধানী হিসেবে মনে করত। বর্তমানে নওগাঁ জেলার সাপাহার, পোরশা উপজেলায় যে পরিমানে বিভিন্ন জাতের আম উৎপাদন হয়ে থাকে তা চাপাই নবাবগঞ্জ জেলার চেয়ে কোন অংশে কম নহে। কয়েক বছর ধরে চাপাই নবাবগঞ্জের মানুষকে আমের মৌসুমে সাপাহার হতে আম কিনে নিয়ে যেতে দেখা গেছে। তারা সাপাহারের আম চাপাই নবাবগঞ্জে নিয়ে গিয়ে চাপাইয়ের আম বলে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করেছে বলেও জানা গেছে।
মধুমাসে উপজেলার বিভিন্ন বাগানে বাগানে ঘুরে দেখা গেছে মধুমাসের ছাপ বাগান গুলোতে লেগেছো। বাগানে বগানে গাছের নিচে মাচান তৈরি করে আম পাহাড়া দিতে দেখা যাচ্ছে আম চাষীদের । এবং আম ব্যবসায়ীদের আম কেনার আনাগোনা বেড়ে গেছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আম ব্যবসায়ীরা সাপাহারে এসে অবস্থান করতেছে সাপাহারের ভাল জাতের আম দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বাজার জাত করার জন্য।
আম চাষী আবুল খায়ের তরুন,রাজ্জাক কাজী,মাসুদ রেজা এদের সাথে কথা হলে তারা জানান এবার ধানের বাজারে ধানের দাম না থাকায় খুবই চিন্তিত ছিলাম কিন্ত এ ক্ষতি আমের ফলন ভালো হওয়ায় পুষে যাবে বলে আশাবাদি তারা এবং আমের বাম্পার ফলনে বউ বাচ্চাদের নিয়ে ভালো ভাবে চলতে পারবেন বলে জানান ।
এলাকার আম আড়ৎ দারদের সাথে কথা হলে তারা জানান গত বারের তুলনায় এবার আম বাজারে আসতে একটু দেরি এবং আম পাইকারীরা সাপাহারে আসতে শুরু করেছে ও বিভিন্ন বাগানে আম ঠিকা হিসেবে কেনা শুরু করেছে ৫-১০ দিনের মধ্যে আমরা আড়তে আম কেনা-বেচা শুরু করবো ওজনে সঠিক মাপ,ফরমালিন মুক্ত আম ও বাজারের অন্যান্ন আড়ৎদারগণ যে দামে আম কেনা বেচা করবে আমরাও সে দামে কেনা বেচা করবো।
সাপাহার উপজেলায় আমের বাগান ও আমের ফলন বৃদ্ধি পেলেও নেই কোন আম সংরক্ষনাগার এখন আম চাষীরা এই উপজেলায় অতি শীঘ্রই একটি আম সংরক্ষনাগার স্থাপনের দাবি জানিয়েছেন।