কুমিল্লায় সিজারের সময় কেচির আঘাতে নবজাতকের নাড়িভুড়ি বেড়িয়ে মৃত্যু

কুমিল্লা প্রতিনিধি : কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার সদরে উপস্থিত স্কয়ার হাসপাতালে প্রসূতি তাসলিমা আক্তার (১৯) কে ১ অক্টোবর সোমবার দুপুরে সিজার করানোর সময় কেচির আঘাতে নবজাতকের নাড়ি ভুড়ি বেড়িয়ে নবজাতকের মৃত্যু ঘটনা ঘটেছে। পরে টাকার বিনিময়ে ব্যাপারটি দামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চলছে বলে জানা গেছে।
প্রসুতি তাসলিমা আক্তার দেবিদ্বার পৌরসভার মোল্লা বাড়ির মোঃ আল আমিন মোল্লার স্ত্রী। ১ অক্টোবর সোমবার দুপুরে সিজার করানোর জন্য দেবিদ্বার স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে সিজার করার জন্য প্রসূতিকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যায়। কর্মরত ডাক্তার মোঃ মোশারফ হোসেন টিটু সিজার করানোর জন্য ওটিতে ঢুকেন। প্রায় ২ঘন্টা পরে ওটি থেকে নবজাতককে বের করে বলেন, শিশুটির গ্যাষ্ট্রোকাইসিস সমস্যা। নবজাতককে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। এই বলে শিশুটিকে রেফার করে দেয়। নবজাতকের আত্মীয়দের অভিযোগ গ্যাষ্ট্রোকাইসিস নামক কোনো রোগে শিশুটি আক্রান্ত ছিলনা। নবজাতকে কেচির আঘাতে নাড়ি-ভুড়ি বের করা হয়েছে। জন্ম হওয়ার ঘন্টা খানেকের মধ্যেই শিশুটির মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় এলাকার লোকজন নিয়ে হাসপাতালে ভিড় জমিয়ে হৈ চৈ শুরু করলে স্কয়ার হাসপাতালের মালিক পক্ষ বিষয়টি পরে দেখা খতিয়ে দেখবে বলে তারা চলে যায়। এ ব্যাপারে হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ জানান, ওই প্রসুতির বাচ্চাটি ছিল উল্টা, তাই পরীক্ষা-নিরীক্ষায় তা ধরা পড়েনি। সিজার করানোর পর ধরা পড়েছে তাই সাথে সাথে কুমিল্লা রেফার করে দিয়েছি। অহেতুক ডাক্তারকে দোষারোপ করছে তারা।

Categories: অপরাধ ফলোআপ,কুমিল্লা,টপ নিউজ,প্রধান নিউজ

Tags: