বিয়ের পরদিন প্রবাসীর স্ত্রীর ঘরে কাউসার (পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক)

বিয়ের পরদিন প্রবাসীর স্ত্রীর ঘরে কাউসার (পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক)

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : শরীয়তপুর সদর উপজেলার রুদ্রকর ইউনিয়নের রুদ্রকর হোগলা গ্রামের বেপারী বাড়ির প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে অনৈতিক কাজের সময় কাউসার বেপারী (২৪) নামের এক যুবককে হাতেনাতে ধরে ফেলে গ্রামবাসী।

এ ঘটনার একদিন পর সেই বাড়ির সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে চুরি করেন কাউসার। আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ার ছবি এবং পরদিন সেই বাড়িতে চুরির ঘটনার ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা। এ ঘটনায় পালং মডেল থানায় অভিযোগ দিয়েছেন স্থানীয়রা।

অভিযুক্ত কাউসার বেপারী উপজেলার রুদ্রকর ইউনিয়নের রুদ্রকর হোগলা গ্রামের আছালদ্দিন বেপারীর ছেলে। কাউসার বেপারী রাজমিস্ত্রির কাজ করেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ২০১১ সালে রুদ্রকর হোগলা গ্রামের ছলেমান বাছারের মেয়ে ইভা আক্তারের (২৪) সঙ্গে একই গ্রামের জলিল বেপারীর ছেলে সৌদিপ্রবাসী আনোয়ার হোসেন আনু বেপারীর বিয়ে হয়।

তাদের চার বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। বিয়ের তিন বছর পর একই গ্রামের কাউসার বেপারীর সঙ্গে প্রথমে বন্ধুত্ব, পরে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে ইভার। এরপর থেকে স্থানীয়রা একাধিকবার দুইজনকে সতর্ক করলেও অনৈতিক কাজ চালিয়ে যান তারা।

এলাকাবাসী জানায়, ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে অনৈতিক কাজের সময় কাউসার ও ইভাকে হাতেনাতে ধরে ফেলে গ্রামবাসী। পরে তাদের বিয়ে দেন গ্রামবাসী। ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে আনু বেপারীর ঘরের সিঁধ কেটে তিন ভরি স্বর্ণ, নগদ ৩০ হাজার টাকা ও আসবাবপত্র নিয়ে যান কাউসার বেপারী।

এসব বিষয় ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে ভাইরাল হয়ে যায়। সেই সঙ্গে শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা। এ ঘটনায় গ্রামবাসীর পক্ষে আজিজুল বেপারী থানায় অভিযোগ দিয়েছেন।

পারুল বেগম, শিল্পী বেগম, আজিজুল বেপারীসহ ওই গ্রামের অনেকে বলেন, অনেকদিন ধরে কাউসারের সঙ্গে ইভার পরকীয়া সম্পর্ক চলছে। গত ২৪ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে ইভার ঘরে ঢুকেন কাউসার। গ্রামের লোকজন বাইর থেকে ওদের ঘরে তালা দেয়। পরের দিন তাদের বিয়ে দেয়া হয়। এমন ঘটনার পরও সিঁধ কেটে সেই ঘরে ঢুকে চুরি করার সময় ধরা পড়েন কাউসার।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রুদ্রকর ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. কবির হোসেন বেপারী বলেন, বিষয়টি শুনেছি। এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে। সমাজে যারা এসব কাজ করে তাদের বিচার হওয়া উচিত।

পালং মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, কাউসার ও ইভার মধ্যে পরকীয়া প্রেম ছিল। গত ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে আপত্তিকর অবস্থায় তাদের হাতেনাতে ধরে বিয়ে দেয় গ্রামবাসী। এ ঘটনার একদিন পর সেই বাড়িতে চুরি করেছে বলে কাউসারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেয় গ্রামবাসী। তদন্ত করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Categories: ঢাকা

Tags: