ঢাকা ১০:৪১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ ::
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম আইএমও এর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা’র আদর্শ বাস্তবায়ন তরুনদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে নড়াইল-১আসনে আবারো আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন বিএম কবিরুল হক মুক্তি খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা ছিলেন বহুমাত্রিকগুনের অধিকারী : অধ্যাপক ড. এম শমসের আলী ফের নৌকার টিকিট পেলেন রাজী মোহাম্মদ ফখরুল পি‌রোজপু‌রে ফেজবু‌কে স্টাটার্স দি‌য়ে অনার্স পড়ুয়া ছা‌ত্রের আত্মহত্যা যেভাবে জানা যাবে এইচএসসির ফল > How to know HSC result নেত্রকোণা -২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ওমর ফারুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে চাটখিলে যুবলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত দিনব্যাপী গণসংযোগ করলেন নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ্ কুতুবউদ্দিন তালুকদার রুয়েল

আশুগঞ্জে মোকামে ধানের মুল্য বেশী হওয়ায় কৃষকের মুখে হাঁসি 

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:১৭:৪৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২২ ২৬১ বার পড়া হয়েছে

আশুগঞ্জে মোকামে ধানের মুল্য বেশী হওয়ায় কৃষকের মুখে হাঁসি 

দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

এহসানুল হক রিপনঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ মোকামে ধানের মুল্য আকাশচুম্বী।ধানের মুল্যের সাথে পাল্লা দিয়ে চাউলের মুল্য মুল্য বাড়ছে। বেশি মুল্য পেয়ে কৃষকরা খুশি হলেও ধান ব্যবসায়ীরা বিপাকে। মোকামে ধান তিন ধরনের মুল্যে বিক্রি হচ্ছে।

নতুন ৪৯ ধান বিক্রি হচ্ছে ১০৮০টাকা থেকে১১০০টাকায়,পুরাতন ২৯ জাতের চিকন ধান বিক্রি হচ্ছে ১১৭০ থেকে ১২১০/১২২০ টাকায় এবং পুরাতন আটাশ চিকন জাতের ধান বিক্রি হচ্ছে ১৩১০ টাকা থেকে ১৩২০/১৩৩০ টাকায়। মোকামের ধান ব্যবসায়ীরা বলছেন এখন কৃষকরা স্বাবলম্ভী।

তাই কৃষকরা ধান বিক্রি না করে তারা শেষ সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করে আরো বেশী মুল্যে ধান বিক্রয় করার জন্য।ফলে আশুগঞ্জ মোকামে ধানের আমদানি তুলনামুলক অনেক কম। আশুগঞ্জ মোকামের ধান ব্যবসায়ীরা বলছেন যেখানে আশুগঞ্জ মোকামে প্রতিদিন ধানের আমাদানী হত ৫০/৬০ হাজার মণ ।বর্তমানে ধান আসছে ২০/২৫ হাজার মণ।

তবে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষকরা ধানের মুল্য বেশী পেয়ে তারা খুশি।শনিবার সকালে আশুগঞ্জ ধানের মোকামে গেলে কথা হয়। কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা উপজেলা থেকে আশুগঞ্জ মোকামে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষক সাথে এ বিষয়ে আশুগঞ্জ মোকামে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষক জিবু মিয়া বলেন,আমি তিনশত বস্তায় ৬শত মণ ধান বিক্রি করার আশুগঞ্জে নিয়ে আসি।

প্রতিমণ চিকন আটশ ধান ১২১০ টাকায় বিক্রি করেছি।ধানের যথাযথ মুল্য পেয়ে আমি খুশি। তিনি সরকারের প্রতি আহবান জানান ধানের ন্যায্যমুল্য যেন কৃষকরা সবসময় পান সে ব্যবস্থা করার। এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ চাতালকল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ভুলু হায়দার বলেন,আশুগঞ্জে চারশতাধিক চাতালকল রয়েছে।

এসব চাতাল কলে প্রতিদিন ৫০হাজার থেকে ৫৫হাজার মণ ধান প্রয়োজন। চাহিদা অনুযায়ী ধানের আমদানি কম।এজন্য আশুগঞ্জে ধানের মুল্য অনেক বেশী। এ অবস্থায় ধানের মুল্য কমার কোন সম্ভাবনা দেখছি না। এ বিষয়ে আশুগঞ্জ জেলা খাদ্য কর্মকর্তা সুবীর নাথের সাথে কথা বললে তিনি বলেন,আমি ইতোমধ্যে আশুগঞ্জ ধানের মোকাম পরিদর্শন করেছি।

পরিদর্শন শেষে ধান ব্যবসায়ীদেও সাথে বসেছি এবং ব্যবসায়ীদের বলেছি যে ধান এবং চাউল নিয়ে কোন সিন্ডিকেটবাজ চলবে না। কেউ যদি এ ন্যনতম অনিয়ম করে তাকে ছাড় দেওয়া হবে না। কোন অনিয়ম পেলে সে যেইহোক দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

আশুগঞ্জে মোকামে ধানের মুল্য বেশী হওয়ায় কৃষকের মুখে হাঁসি 

আপডেট সময় : ১২:১৭:৪৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২২

এহসানুল হক রিপনঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ মোকামে ধানের মুল্য আকাশচুম্বী।ধানের মুল্যের সাথে পাল্লা দিয়ে চাউলের মুল্য মুল্য বাড়ছে। বেশি মুল্য পেয়ে কৃষকরা খুশি হলেও ধান ব্যবসায়ীরা বিপাকে। মোকামে ধান তিন ধরনের মুল্যে বিক্রি হচ্ছে।

নতুন ৪৯ ধান বিক্রি হচ্ছে ১০৮০টাকা থেকে১১০০টাকায়,পুরাতন ২৯ জাতের চিকন ধান বিক্রি হচ্ছে ১১৭০ থেকে ১২১০/১২২০ টাকায় এবং পুরাতন আটাশ চিকন জাতের ধান বিক্রি হচ্ছে ১৩১০ টাকা থেকে ১৩২০/১৩৩০ টাকায়। মোকামের ধান ব্যবসায়ীরা বলছেন এখন কৃষকরা স্বাবলম্ভী।

তাই কৃষকরা ধান বিক্রি না করে তারা শেষ সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করে আরো বেশী মুল্যে ধান বিক্রয় করার জন্য।ফলে আশুগঞ্জ মোকামে ধানের আমদানি তুলনামুলক অনেক কম। আশুগঞ্জ মোকামের ধান ব্যবসায়ীরা বলছেন যেখানে আশুগঞ্জ মোকামে প্রতিদিন ধানের আমাদানী হত ৫০/৬০ হাজার মণ ।বর্তমানে ধান আসছে ২০/২৫ হাজার মণ।

তবে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষকরা ধানের মুল্য বেশী পেয়ে তারা খুশি।শনিবার সকালে আশুগঞ্জ ধানের মোকামে গেলে কথা হয়। কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা উপজেলা থেকে আশুগঞ্জ মোকামে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষক সাথে এ বিষয়ে আশুগঞ্জ মোকামে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষক জিবু মিয়া বলেন,আমি তিনশত বস্তায় ৬শত মণ ধান বিক্রি করার আশুগঞ্জে নিয়ে আসি।

প্রতিমণ চিকন আটশ ধান ১২১০ টাকায় বিক্রি করেছি।ধানের যথাযথ মুল্য পেয়ে আমি খুশি। তিনি সরকারের প্রতি আহবান জানান ধানের ন্যায্যমুল্য যেন কৃষকরা সবসময় পান সে ব্যবস্থা করার। এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ চাতালকল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ভুলু হায়দার বলেন,আশুগঞ্জে চারশতাধিক চাতালকল রয়েছে।

এসব চাতাল কলে প্রতিদিন ৫০হাজার থেকে ৫৫হাজার মণ ধান প্রয়োজন। চাহিদা অনুযায়ী ধানের আমদানি কম।এজন্য আশুগঞ্জে ধানের মুল্য অনেক বেশী। এ অবস্থায় ধানের মুল্য কমার কোন সম্ভাবনা দেখছি না। এ বিষয়ে আশুগঞ্জ জেলা খাদ্য কর্মকর্তা সুবীর নাথের সাথে কথা বললে তিনি বলেন,আমি ইতোমধ্যে আশুগঞ্জ ধানের মোকাম পরিদর্শন করেছি।

পরিদর্শন শেষে ধান ব্যবসায়ীদেও সাথে বসেছি এবং ব্যবসায়ীদের বলেছি যে ধান এবং চাউল নিয়ে কোন সিন্ডিকেটবাজ চলবে না। কেউ যদি এ ন্যনতম অনিয়ম করে তাকে ছাড় দেওয়া হবে না। কোন অনিয়ম পেলে সে যেইহোক দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।