ঢাকা ১১:৪৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ ::
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম আইএমও এর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা’র আদর্শ বাস্তবায়ন তরুনদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে নড়াইল-১আসনে আবারো আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন বিএম কবিরুল হক মুক্তি খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা ছিলেন বহুমাত্রিকগুনের অধিকারী : অধ্যাপক ড. এম শমসের আলী ফের নৌকার টিকিট পেলেন রাজী মোহাম্মদ ফখরুল পি‌রোজপু‌রে ফেজবু‌কে স্টাটার্স দি‌য়ে অনার্স পড়ুয়া ছা‌ত্রের আত্মহত্যা যেভাবে জানা যাবে এইচএসসির ফল > How to know HSC result নেত্রকোণা -২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ওমর ফারুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে চাটখিলে যুবলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত দিনব্যাপী গণসংযোগ করলেন নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ্ কুতুবউদ্দিন তালুকদার রুয়েল

আশুগঞ্জে অগ্নিকান্ডে এক পরিবারের ৪ সদস্য নিহত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৪৩:০১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ মার্চ ২০২২ ১৯৮ বার পড়া হয়েছে
দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

এহসানুল হক রিপনঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে আগুনের ঘটনায় গৃহকর্তা মকবুল, তার ছয় বছরের ছোট ছেলে জুবায়ের, বড় ছেলে জয় ও গৃহকর্তী রেখার গর্ভের সন্তানের পর এবার মৃত্যুর কাছে হার মানলেন অগ্নিদগ্ধ রেখাও।

এই ঘটনায় মকবুল-রেখাসহ ওই পরিবারের সদস্যদের কেউই আর রইল না।এ নিয়ে এলাকায় চলছে শোকের মাতম।

গতকাল সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টা ৩০ মিনিটে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শেখ হাসিনা বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রেখার মৃত্যু হয়। নিহতের চাচা শরীফুল ইসলাম রেখার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।এর আগে মঙ্গলবার (২২ ফেব্রুয়ারি) রাত সোয়া ১০টার দিকে উপজেলা সদরের শরীয়তনগর এলাকায় আগুনের ঘটনা ঘটে।

এ সময় নিহত মকবুল হোসেনের ছেলে জুবায়ের (৬) অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়।এ ঘটনায় মকবুল হোসেন (৪০) ও তার স্ত্রী রেখা বেগম (৩২) এবং তাদের আরেক ছেলে জয় (১২) ও ভবনের বাসিন্দা জামিয়া রহমানসহ ১০ দগ্ধ হয়েছেন।

তারা মুমুর্ষু অবস্থায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন হাসপাতালে ও ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন।বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকালে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন মকবুল হোসেন।এরপর রোববার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মকবুলের বড় ছেলে জয় মৃত্যুবরণ করেন।

পরিবারের শেষ ব্যক্তি রেখা ছিলেন শেখ হাসিনা বার্ণ ইউনিটের লাইফ সাপোর্টে। অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মেনে সোমবার রাত ১০টা ৩০ মিনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রেখাও মৃত্যুবরণ করেন। তাদের পরিবারের আর কেউ বেঁচে নেই। এ নিয়ে এলাকায় চলছে শোকের মাতম।

উল্লেখ্য যে, উপজেলার চরচারতলা ইউনিয়নের শরীয়তনগর এলাকায় স্থানীয় মোহাম্মদ আলাই মিয়ার পাঁচতলা বিশিষ্ট বাড়ির নিচতলার ভাড়া থাকতেন মকবুল হোসেন ও তার পরিবার।

২২ ফেব্রুয়ারি রাত সোয়া ১০টার দিকে মকবুলের বড় ছেলে জয় মশার কয়েল ধরানোর জন্য দিয়াশলাই দিয়ে আগুন জ্বালায়। এ সময় কিছু বুঝার আগেই মুহুর্তের মধ্যে আগুন পুরো ঘরে ছড়িয়ে যায়। মকবুল হোসেন তখন রাতের খাবার খেতে বসেছিল।

অগ্নিকাণ্ডের ফলে বাসার বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার কারণে অন্ধকারে দরজা খুজে না পাওয়ায় তারা বের হতে পারেনি। ফলে বাসার ভেতরে তারা আটকে যায় এবং চারজনই অগ্নিদগ্ধ হয়। খবর পেয়ে আশুগঞ্জ, সরাইল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া ফায়ার সার্ভিসের ৪টি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

অগ্নিদগ্ধ হওয়ার পর রাতেই মকবুলের ছোট ছেলে জুবায়ের মারা যায়। পরে রাতেই মকবুল হোসেন ও তার পরিবারের আরো দুই সদস্যকে ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার বিকালে মকবুল হোসেন মৃত্যুবরণ করেন।

এরপর রোববার সকালে সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মকবুলেল বড় ছেলে জয় মৃত্যুবরণ করেন।এর আগে মকবুলের স্ত্রীর গর্ভে থাকা সন্তানও মৃত্যুবরণ করে। সর্বশেষ সাতদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মকবুলের পরিবারের।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আশুগঞ্জে অগ্নিকান্ডে এক পরিবারের ৪ সদস্য নিহত

আপডেট সময় : ০১:৪৩:০১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ মার্চ ২০২২

এহসানুল হক রিপনঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে আগুনের ঘটনায় গৃহকর্তা মকবুল, তার ছয় বছরের ছোট ছেলে জুবায়ের, বড় ছেলে জয় ও গৃহকর্তী রেখার গর্ভের সন্তানের পর এবার মৃত্যুর কাছে হার মানলেন অগ্নিদগ্ধ রেখাও।

এই ঘটনায় মকবুল-রেখাসহ ওই পরিবারের সদস্যদের কেউই আর রইল না।এ নিয়ে এলাকায় চলছে শোকের মাতম।

গতকাল সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টা ৩০ মিনিটে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শেখ হাসিনা বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রেখার মৃত্যু হয়। নিহতের চাচা শরীফুল ইসলাম রেখার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।এর আগে মঙ্গলবার (২২ ফেব্রুয়ারি) রাত সোয়া ১০টার দিকে উপজেলা সদরের শরীয়তনগর এলাকায় আগুনের ঘটনা ঘটে।

এ সময় নিহত মকবুল হোসেনের ছেলে জুবায়ের (৬) অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়।এ ঘটনায় মকবুল হোসেন (৪০) ও তার স্ত্রী রেখা বেগম (৩২) এবং তাদের আরেক ছেলে জয় (১২) ও ভবনের বাসিন্দা জামিয়া রহমানসহ ১০ দগ্ধ হয়েছেন।

তারা মুমুর্ষু অবস্থায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন হাসপাতালে ও ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন।বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকালে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন মকবুল হোসেন।এরপর রোববার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মকবুলের বড় ছেলে জয় মৃত্যুবরণ করেন।

পরিবারের শেষ ব্যক্তি রেখা ছিলেন শেখ হাসিনা বার্ণ ইউনিটের লাইফ সাপোর্টে। অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মেনে সোমবার রাত ১০টা ৩০ মিনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রেখাও মৃত্যুবরণ করেন। তাদের পরিবারের আর কেউ বেঁচে নেই। এ নিয়ে এলাকায় চলছে শোকের মাতম।

উল্লেখ্য যে, উপজেলার চরচারতলা ইউনিয়নের শরীয়তনগর এলাকায় স্থানীয় মোহাম্মদ আলাই মিয়ার পাঁচতলা বিশিষ্ট বাড়ির নিচতলার ভাড়া থাকতেন মকবুল হোসেন ও তার পরিবার।

২২ ফেব্রুয়ারি রাত সোয়া ১০টার দিকে মকবুলের বড় ছেলে জয় মশার কয়েল ধরানোর জন্য দিয়াশলাই দিয়ে আগুন জ্বালায়। এ সময় কিছু বুঝার আগেই মুহুর্তের মধ্যে আগুন পুরো ঘরে ছড়িয়ে যায়। মকবুল হোসেন তখন রাতের খাবার খেতে বসেছিল।

অগ্নিকাণ্ডের ফলে বাসার বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার কারণে অন্ধকারে দরজা খুজে না পাওয়ায় তারা বের হতে পারেনি। ফলে বাসার ভেতরে তারা আটকে যায় এবং চারজনই অগ্নিদগ্ধ হয়। খবর পেয়ে আশুগঞ্জ, সরাইল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া ফায়ার সার্ভিসের ৪টি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

অগ্নিদগ্ধ হওয়ার পর রাতেই মকবুলের ছোট ছেলে জুবায়ের মারা যায়। পরে রাতেই মকবুল হোসেন ও তার পরিবারের আরো দুই সদস্যকে ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার বিকালে মকবুল হোসেন মৃত্যুবরণ করেন।

এরপর রোববার সকালে সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মকবুলেল বড় ছেলে জয় মৃত্যুবরণ করেন।এর আগে মকবুলের স্ত্রীর গর্ভে থাকা সন্তানও মৃত্যুবরণ করে। সর্বশেষ সাতদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মকবুলের পরিবারের।