ঢাকা ১০:২১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ ::
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম আইএমও এর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা’র আদর্শ বাস্তবায়ন তরুনদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে নড়াইল-১আসনে আবারো আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন বিএম কবিরুল হক মুক্তি খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা ছিলেন বহুমাত্রিকগুনের অধিকারী : অধ্যাপক ড. এম শমসের আলী ফের নৌকার টিকিট পেলেন রাজী মোহাম্মদ ফখরুল পি‌রোজপু‌রে ফেজবু‌কে স্টাটার্স দি‌য়ে অনার্স পড়ুয়া ছা‌ত্রের আত্মহত্যা যেভাবে জানা যাবে এইচএসসির ফল > How to know HSC result নেত্রকোণা -২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ওমর ফারুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে চাটখিলে যুবলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত দিনব্যাপী গণসংযোগ করলেন নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ্ কুতুবউদ্দিন তালুকদার রুয়েল

মোংলা বন্দরে ইনার বার ড্রেজিংয়ে বাঁধা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:৪৩:০২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১১ এপ্রিল ২০২২ ১৬৮ বার পড়া হয়েছে

মোংলা বন্দরে ইনার বার ড্রেজিংয়ে বাঁধা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে

দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আলী আজীম, মোংলা, বাগেরহাটঃ মোংলা বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে চলমান ড্রেজিং কার্যক্রম ব্যাহত করতে একটি চক্র উঠে পড়ে লেগেছে। এই চক্রটি বিভিন্ন অপপ্রচার চালিয়ে বন্দরের চলমান উন্নয়ন বাঁধাগ্রস্থ করছে। কিছু সুবিধাবাদী ব্যক্তি এসব করছেন উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরেন মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (হারবার ও মেরিন) কমডোর আব্দুল ওয়াদুদ তরফদার।

রবিবার দুপুর ১২টায় বন্দর কর্তৃপক্ষের সম্মেলন কক্ষে আব্দুল ওয়াদুদ তরফদার আরো বলেন, বন্দরে সাড়ে ৯ মিটার গভীরতা সম্পন্ন বাণিজ্যিক জাহাজ প্রবেশে জরুরীভাবে হাড়বাড়ীয়া থেকে বন্দর জেটি পর্যন্ত ২৩ দশমিক চার মিটার ড্রেজিং কার্যক্রম শুরু হয় ২০২১ সালের ২৩ মার্চ।

ড্রেজিংয়ের বালু ফেলার জন্য মোংলা উপজেলার চিলা ইউনিয়নের জয়মনিরঘোল হতে চাঁদপাই ইউনিয়নের কাইনমারী পর্যন্ত বন্দর কর্তৃপক্ষ দুই বছরের জন্য ৭০০ একর জমি হুকুম দখল করে। ওই জমির মালিককে ক্ষতিপূরণসহ জমি ব্যবহার শেষে তাদের জমি ফেরৎ দেওয়া হবে।

এছাড়া সুন্দরবন ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হওয়ায় ড্রেজিংয়ের মাটি কোন অবস্থাতাতেই সুন্দরবনের মধ্যে ফেলা যাবেনা। তাই বৃহত্তর স্বার্থে সুন্দরবনের বাহিরে পশুর নদীর তীরবর্তী এলাকার জমিতে ড্রেজিংয়ের বালু ফেলতে হচ্ছে। কিন্তু একটি কুচক্রী মহল এই জমিতে বালু ফেলতে বাঁধা সৃষ্টি করে কথিত আন্দোলনের চেষ্টা করছে।

ওই মহলটি বন্দর কর্তৃপক্ষের লীজ নেওয়া ওই জমিটি কৃষি জমি উল্লেখ আন্দোলন গরম করছে। এসব সুবিধাবাধী ব্যক্তিকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান বন্দরের কর্তৃপক্ষের পদস্থ কর্মকর্তা কমডোর আব্দুল ওয়াদুদ তরফদার।

বন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়, মোংলা বন্দরের হাড়বাড়ীয়া এ্যাংকোরেজ থেকে জেটি পর্যন্ত ২৩ দশমিক চার মিটার নৌ পথের গভীরতা কম থাকায় বাণিজ্যিক জাহাজ চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। এ সমস্যা ছিল বন্দর চ্যানেলের প্রবেশ মুখ বা আউটার বারেও। তবে সম্প্রতি ড্রেজিং করে নাব্যতা ফিরিয়ে এনে কর্তৃপক্ষ আউটার বারের সমস্যার সমাধান করেছে।

এখন অনায়াসেই সাড়ে ৯ মিটারের দেশী- বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজ পণ্য নিয়ে বন্দরের হাড়বাড়ীয়া পর্যন্ত নোঙ্গর করছে। কিন্তু সমস্যা ইনার বারের (হাড়বাড়ীয়া থেকে বন্দর জেটি পর্যন্ত) ২৩ দশমিক চার মিটার নিয়ে। এটির নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে ইতোমধ্যে বন্দর কর্তৃপক্ষ ড্রেজিং শুরু করেছে।

গত ২০২১ সালের ১৩ মার্চ থেকে থেকে ৭’শ ৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে এই কার্যক্রম শুরু করে বন্দর কর্তৃপক্ষ। রবিবার (১০ এপ্রিল) দুপুরে মোংলা বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে ড্রেজিং প্রকল্প বাস্তবয়ন ও গুরুত্ব সম্পর্কে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্রকৌশল ও উন্নয়ন) মোঃ ইমতিয়াজ হোসেন, সচিব ও হারবার মাষ্টার কমান্ডার শেখ ফখরউদ্দিন, প্রধান অর্থ ও হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা মোঃ সিদ্দিকুর রহমান ও সিভিল ও হাইড্রলিক বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মোঃ শওকত আলী।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

মোংলা বন্দরে ইনার বার ড্রেজিংয়ে বাঁধা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে

আপডেট সময় : ১২:৪৩:০২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১১ এপ্রিল ২০২২

আলী আজীম, মোংলা, বাগেরহাটঃ মোংলা বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে চলমান ড্রেজিং কার্যক্রম ব্যাহত করতে একটি চক্র উঠে পড়ে লেগেছে। এই চক্রটি বিভিন্ন অপপ্রচার চালিয়ে বন্দরের চলমান উন্নয়ন বাঁধাগ্রস্থ করছে। কিছু সুবিধাবাদী ব্যক্তি এসব করছেন উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরেন মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (হারবার ও মেরিন) কমডোর আব্দুল ওয়াদুদ তরফদার।

রবিবার দুপুর ১২টায় বন্দর কর্তৃপক্ষের সম্মেলন কক্ষে আব্দুল ওয়াদুদ তরফদার আরো বলেন, বন্দরে সাড়ে ৯ মিটার গভীরতা সম্পন্ন বাণিজ্যিক জাহাজ প্রবেশে জরুরীভাবে হাড়বাড়ীয়া থেকে বন্দর জেটি পর্যন্ত ২৩ দশমিক চার মিটার ড্রেজিং কার্যক্রম শুরু হয় ২০২১ সালের ২৩ মার্চ।

ড্রেজিংয়ের বালু ফেলার জন্য মোংলা উপজেলার চিলা ইউনিয়নের জয়মনিরঘোল হতে চাঁদপাই ইউনিয়নের কাইনমারী পর্যন্ত বন্দর কর্তৃপক্ষ দুই বছরের জন্য ৭০০ একর জমি হুকুম দখল করে। ওই জমির মালিককে ক্ষতিপূরণসহ জমি ব্যবহার শেষে তাদের জমি ফেরৎ দেওয়া হবে।

এছাড়া সুন্দরবন ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হওয়ায় ড্রেজিংয়ের মাটি কোন অবস্থাতাতেই সুন্দরবনের মধ্যে ফেলা যাবেনা। তাই বৃহত্তর স্বার্থে সুন্দরবনের বাহিরে পশুর নদীর তীরবর্তী এলাকার জমিতে ড্রেজিংয়ের বালু ফেলতে হচ্ছে। কিন্তু একটি কুচক্রী মহল এই জমিতে বালু ফেলতে বাঁধা সৃষ্টি করে কথিত আন্দোলনের চেষ্টা করছে।

ওই মহলটি বন্দর কর্তৃপক্ষের লীজ নেওয়া ওই জমিটি কৃষি জমি উল্লেখ আন্দোলন গরম করছে। এসব সুবিধাবাধী ব্যক্তিকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান বন্দরের কর্তৃপক্ষের পদস্থ কর্মকর্তা কমডোর আব্দুল ওয়াদুদ তরফদার।

বন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়, মোংলা বন্দরের হাড়বাড়ীয়া এ্যাংকোরেজ থেকে জেটি পর্যন্ত ২৩ দশমিক চার মিটার নৌ পথের গভীরতা কম থাকায় বাণিজ্যিক জাহাজ চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। এ সমস্যা ছিল বন্দর চ্যানেলের প্রবেশ মুখ বা আউটার বারেও। তবে সম্প্রতি ড্রেজিং করে নাব্যতা ফিরিয়ে এনে কর্তৃপক্ষ আউটার বারের সমস্যার সমাধান করেছে।

এখন অনায়াসেই সাড়ে ৯ মিটারের দেশী- বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজ পণ্য নিয়ে বন্দরের হাড়বাড়ীয়া পর্যন্ত নোঙ্গর করছে। কিন্তু সমস্যা ইনার বারের (হাড়বাড়ীয়া থেকে বন্দর জেটি পর্যন্ত) ২৩ দশমিক চার মিটার নিয়ে। এটির নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে ইতোমধ্যে বন্দর কর্তৃপক্ষ ড্রেজিং শুরু করেছে।

গত ২০২১ সালের ১৩ মার্চ থেকে থেকে ৭’শ ৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে এই কার্যক্রম শুরু করে বন্দর কর্তৃপক্ষ। রবিবার (১০ এপ্রিল) দুপুরে মোংলা বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে ড্রেজিং প্রকল্প বাস্তবয়ন ও গুরুত্ব সম্পর্কে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্রকৌশল ও উন্নয়ন) মোঃ ইমতিয়াজ হোসেন, সচিব ও হারবার মাষ্টার কমান্ডার শেখ ফখরউদ্দিন, প্রধান অর্থ ও হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা মোঃ সিদ্দিকুর রহমান ও সিভিল ও হাইড্রলিক বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মোঃ শওকত আলী।