ঢাকা ০৮:০৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ ::
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম আইএমও এর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা’র আদর্শ বাস্তবায়ন তরুনদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে নড়াইল-১আসনে আবারো আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন বিএম কবিরুল হক মুক্তি খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা ছিলেন বহুমাত্রিকগুনের অধিকারী : অধ্যাপক ড. এম শমসের আলী ফের নৌকার টিকিট পেলেন রাজী মোহাম্মদ ফখরুল পি‌রোজপু‌রে ফেজবু‌কে স্টাটার্স দি‌য়ে অনার্স পড়ুয়া ছা‌ত্রের আত্মহত্যা যেভাবে জানা যাবে এইচএসসির ফল > How to know HSC result নেত্রকোণা -২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ওমর ফারুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে চাটখিলে যুবলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত দিনব্যাপী গণসংযোগ করলেন নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ্ কুতুবউদ্দিন তালুকদার রুয়েল

আশুগঞ্জে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে নৌকা ডুবাতে মরিয়া আ.লীগের বিদ্রোহীরা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:০২:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০২১ ১৬২ বার পড়া হয়েছে
দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

এহসানুল হক রিপন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া আশুগঞ্জে ক্ষমতাসীন দলের প্রধান প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড়িয়েছে নিজ দলের নেতাকর্মীরাই। নৌকা ডুুুুবাতে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বিদ্রোহী প্রার্থী ও তার সমর্থকরা। প্রকাশ্যে বিরোধিতা করায় বেকায়দায় পড়েছে এখানকার (নৌকা)’র মনোনীত প্রার্থীরা। অথচ গত কয়েক দিন আগেও নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে বিদ্রোহীদের বিষয়ে কঠোর বার্তা দিয়ে ছিলেন উপজেলার ও জেলার নেতাকর্মীরা।

তৃণমূলের বৈঠকে তারা বলেন, অতীতের সকল ভেদাভেদ ভুলে হাতে-হাত রেখে দলের সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকলে নৌকার বিজয় নিশ্চিত হবে। দলের বিরুদ্ধে কেউ প্রার্থী হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়ে ছিলেন নেতাকর্মীরা।

তবে নির্বাচনী মাঠে অনুসন্ধান বলছে তার উল্টো এই সতর্কবাণী দলের কোনো কাজে আসেনি।যাদের নিয়ে আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা একেই মঞ্চে ছিলেন তারাই দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীদের হারাতে মাঠে মরিয়া হয়ে উঠেছেন তারা। দলীয় নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে নৌকার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে বিরোধিতা করায় বেকায়দায় পড়েছেন এখানকার (নৌকা)’র মনোনীত প্রার্থীরা।

অপরদিকে স্থানীয় রাজনৈতিক সূত্র বলে বিদ্রোহী কী আ.লীগের নিয়ন্ত্রণে থাকবে? বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থীদের কাছে অনেকটাই কোণঠাসা হয়ে আছেন দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তরা। তূণমুলের একাধিক নেতাকর্মীরা প্রশ্ন তুলছেন। ১৯ তারিখ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রত্যাহার না করে নিলে বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে নৌকা প্রার্থীরা কঠিন প্রতিদ্বন্ধিতার মধ্যে পড়বেন। নানা কারণে নৌকার ভরাডুবি হবে বলে জানান নির্বাচন সংশ্লিষ্ঠরা।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা আ.লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মো. হানিফ মুন্সি জানান, প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা অনুযায়ী দলের বিরুদ্ধে যারা অবস্থান নেবে তাদের তালিকা জেলা আ.লীগের কাছে পাঠিয়ে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নৌকার প্রার্থীকে জয়ী করে আনতে দলের সবাই ঐকান্তিকভাবে কাজ করবে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে: উপজেলা আ.লীগের আহ্বায়ক হাজী সফিউল্লাহ মিয়া জানান, আমরা আশা করি ১৯ তারিখের মধ্যে বিদ্রোহী প্রার্থীর সংখ্যা কমে আসবে। (নৌকা)’র মনোনীত প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত করতে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যদি মনোনয়ন প্রত্যাহার না করে কেউ দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচনে করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তবে এবিষয়ে জানতে চাইলে: জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার জানান, ইতোমধ্যেই দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আশুগঞ্জেও যদি কোন প্রার্থী দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে প্রার্থী হয় কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাকে দল থেকে থেকে বহিস্কার করা হবে। এই ব্যাপারে কোন গাফিলতি করা হবে না। সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে দেখা যায়।

আগামী ৫ জানুয়ারি পঞ্চম ধাপে আশুগঞ্জ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে চেয়ারম্যান পদে নৌকার মনোনয়নপত্র জমা পড়ে (৮জন)। এবং (নৌকা)’র বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা পড়েন (৩০ জন)। তবে যে যাই বলুক আশুগঞ্জে নির্বাচনী মাঠ বলে কথা গোষ্ঠীগত সিদ্ধান্ত আর রাজনৈতিক কারণে বিদ্রোহী প্রার্থীরা সরাসরি ভোটযুদ্ধে নেমেছে এই নির্বাচনে পরীক্ষা হবে সবচেয়ে কঠিন। আ.লীগের প্রতিপক্ষ আ.লীগ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আশুগঞ্জে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে নৌকা ডুবাতে মরিয়া আ.লীগের বিদ্রোহীরা

আপডেট সময় : ০৯:০২:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০২১

এহসানুল হক রিপন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া আশুগঞ্জে ক্ষমতাসীন দলের প্রধান প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড়িয়েছে নিজ দলের নেতাকর্মীরাই। নৌকা ডুুুুবাতে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বিদ্রোহী প্রার্থী ও তার সমর্থকরা। প্রকাশ্যে বিরোধিতা করায় বেকায়দায় পড়েছে এখানকার (নৌকা)’র মনোনীত প্রার্থীরা। অথচ গত কয়েক দিন আগেও নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে বিদ্রোহীদের বিষয়ে কঠোর বার্তা দিয়ে ছিলেন উপজেলার ও জেলার নেতাকর্মীরা।

তৃণমূলের বৈঠকে তারা বলেন, অতীতের সকল ভেদাভেদ ভুলে হাতে-হাত রেখে দলের সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকলে নৌকার বিজয় নিশ্চিত হবে। দলের বিরুদ্ধে কেউ প্রার্থী হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়ে ছিলেন নেতাকর্মীরা।

তবে নির্বাচনী মাঠে অনুসন্ধান বলছে তার উল্টো এই সতর্কবাণী দলের কোনো কাজে আসেনি।যাদের নিয়ে আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা একেই মঞ্চে ছিলেন তারাই দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীদের হারাতে মাঠে মরিয়া হয়ে উঠেছেন তারা। দলীয় নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে নৌকার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে বিরোধিতা করায় বেকায়দায় পড়েছেন এখানকার (নৌকা)’র মনোনীত প্রার্থীরা।

অপরদিকে স্থানীয় রাজনৈতিক সূত্র বলে বিদ্রোহী কী আ.লীগের নিয়ন্ত্রণে থাকবে? বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থীদের কাছে অনেকটাই কোণঠাসা হয়ে আছেন দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তরা। তূণমুলের একাধিক নেতাকর্মীরা প্রশ্ন তুলছেন। ১৯ তারিখ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রত্যাহার না করে নিলে বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে নৌকা প্রার্থীরা কঠিন প্রতিদ্বন্ধিতার মধ্যে পড়বেন। নানা কারণে নৌকার ভরাডুবি হবে বলে জানান নির্বাচন সংশ্লিষ্ঠরা।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা আ.লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মো. হানিফ মুন্সি জানান, প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা অনুযায়ী দলের বিরুদ্ধে যারা অবস্থান নেবে তাদের তালিকা জেলা আ.লীগের কাছে পাঠিয়ে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নৌকার প্রার্থীকে জয়ী করে আনতে দলের সবাই ঐকান্তিকভাবে কাজ করবে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে: উপজেলা আ.লীগের আহ্বায়ক হাজী সফিউল্লাহ মিয়া জানান, আমরা আশা করি ১৯ তারিখের মধ্যে বিদ্রোহী প্রার্থীর সংখ্যা কমে আসবে। (নৌকা)’র মনোনীত প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত করতে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যদি মনোনয়ন প্রত্যাহার না করে কেউ দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচনে করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তবে এবিষয়ে জানতে চাইলে: জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার জানান, ইতোমধ্যেই দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আশুগঞ্জেও যদি কোন প্রার্থী দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে প্রার্থী হয় কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাকে দল থেকে থেকে বহিস্কার করা হবে। এই ব্যাপারে কোন গাফিলতি করা হবে না। সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে দেখা যায়।

আগামী ৫ জানুয়ারি পঞ্চম ধাপে আশুগঞ্জ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে চেয়ারম্যান পদে নৌকার মনোনয়নপত্র জমা পড়ে (৮জন)। এবং (নৌকা)’র বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা পড়েন (৩০ জন)। তবে যে যাই বলুক আশুগঞ্জে নির্বাচনী মাঠ বলে কথা গোষ্ঠীগত সিদ্ধান্ত আর রাজনৈতিক কারণে বিদ্রোহী প্রার্থীরা সরাসরি ভোটযুদ্ধে নেমেছে এই নির্বাচনে পরীক্ষা হবে সবচেয়ে কঠিন। আ.লীগের প্রতিপক্ষ আ.লীগ।