ঢাকা ১১:১৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০২৪, ২৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ ::
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম আইএমও এর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা’র আদর্শ বাস্তবায়ন তরুনদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে নড়াইল-১আসনে আবারো আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন বিএম কবিরুল হক মুক্তি খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা ছিলেন বহুমাত্রিকগুনের অধিকারী : অধ্যাপক ড. এম শমসের আলী ফের নৌকার টিকিট পেলেন রাজী মোহাম্মদ ফখরুল পি‌রোজপু‌রে ফেজবু‌কে স্টাটার্স দি‌য়ে অনার্স পড়ুয়া ছা‌ত্রের আত্মহত্যা যেভাবে জানা যাবে এইচএসসির ফল > How to know HSC result নেত্রকোণা -২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ওমর ফারুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে চাটখিলে যুবলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত দিনব্যাপী গণসংযোগ করলেন নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ্ কুতুবউদ্দিন তালুকদার রুয়েল

করোনাকালে সম্পদের পরিমাণ দ্বিগুণ করেছেন শীর্ষ ১০ ধনী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:২৫:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২ ২৯১ বার পড়া হয়েছে

করোনাকালে সম্পদের পরিমাণ দ্বিগুণ করেছেন শীর্ষ ১০ ধনী

দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

হাকিকুল ইসলাম খোকন ,যুক্তরাষ্ট্রঃ বিশ্বব্যাপী মহামারি করোনা ভাইরাসের ভয়াল তাণ্ডব শুরুর পর থেকে শীর্ষ ১০ ধনী ব্যক্তির সম্পদের পরিমাণ দ্বিগুণ হয়েছে। আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা (অক্সফাম) বলছে, বিশ্বের এই শীর্ষ ১০ ধনীর বর্তমান সম্পদের পরিমাণ ১ দশমিক ৫ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার।

এতে ধনী ও দারিদ্র্যের ব্যবধান আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। সম্প্রতি এ ধরনের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে সংস্থাটি। কোভিড মহামারি মোকাবিলায় ধনীদের সম্পদের ওপর কর আরোপের অনুরোধও জানায় সংস্থাটি। তাদের মতে, প্রাণঘাতী ভাইরাসটি বিশ্ব ব্যাংকের তথ্যে উঠে এসেছে, বিশ্বের ১৬৩ মিলিয়ন অর্থাৎ ১৬ কোটি ৩০ লাখের বেশি মানুষ দরিদ্র্যসীমার নিচে চলে গেছে।

যেখানে ধনীরা আরও ফুলে ফেঁপে উঠেছেন রাষ্ট্রগুলোর সরকারের সহায়তা পেয়ে। অক্সফামের প্রজেক্টের তথ্য বলছে, ২০৩০ সালে ৩ দশমিক ৩ বিলিয়ন অর্থাৎ ৩৩০ কোটি মানুষ দৈনিক ৫ দশমিক ৫০ ডলারের কম আয় করবে। দাতা সংস্থাটি বলছে, বিশ্বের ৯৯ শতাংশ মানুষের আয় ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের অক্টোবর পর্যন্ত কমে গিয়েছিল।

এ দিকে ইলেকট্রিক কার নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান টেসলার প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্কসহ বিশ্বের আরও নয়জন বিলিয়নিয়ারের দৈনিক আয় বেড়েছে এক দশমিক ৩ বিলিয়ন অর্থাৎ ১৩০ কোটি মার্কিন ডলার। ফোর্বস ম্যাগাজিনের এ বছরের ধনীর তালিকার হিসাবে দেখা গেছে, প্রথম ১০ ধনী ব্যক্তির প্রত্যেকের সম্পত্তির পরিমাণ ১০ হাজার কোটি ডলারের বেশি।

তাদের মধ্যে টেসলার মালিক এলন মাস্কের সম্পত্তির পরিমাণই ২৯৪ বিলিয়ন ডলার অর্থাৎ ২৯ হাজার ৪০ কোটি মার্কিন ডলার।জনপ্রিয় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোসকে ছাড়িয়ে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি হন ইলন মাস্ক। এ সময়ের মধ্যে বেজোসের মোট সম্পদ ৬৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ২০৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গের সম্পদ দ্বিগুণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ১১৮ বিলিয়ন ডলার। আর মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসের সম্পদ ৩১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩৭ বিলিয়ন ডলার। সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) বার্ষিক বৈঠকের আগে অক্সফাম সাধারণত এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

যদিও চলতি বছরও সেটি মহামারির কারণে স্থগিত করা হয়েছে। ফলে বিশ্বের শীর্ষ ধনী এবং ক্ষমতাবান ব্যক্তিরা উপস্থিত হতে পারছেন না এবারও। সংস্থাটির দাবি, এই অর্থনৈতিক অসমতার কারণে বিভিন্ন ধরনের সংকট দেখা দিয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছেন না দরিদ্র মানুষরা।

ক্ষুধা, লিঙ্গবৈষম্যগত সহিংসতাও বেড়েছে। এর ফলে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবও পড়ছে।অক্সফামের এক শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, বিলিয়নিয়ারদের যখন বিস্ফোরণ ঘটছে, তখন বহু মানুষও দরিদ্র্যসীমার নিচে চলে যাচ্ছে।

ফলে অর্থনীতির ভিত্তি নড়বড়ে হয়ে যাচ্ছে। এটি একটি দুঃখজনক ব্যাপার যে, স্বাস্থ্য ও খাদ্যের প্রয়োজনীয় উপাদানের অভাবে প্রতিনিয়ত বহু মানুষ মারা যাচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

করোনাকালে সম্পদের পরিমাণ দ্বিগুণ করেছেন শীর্ষ ১০ ধনী

আপডেট সময় : ০১:২৫:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২

হাকিকুল ইসলাম খোকন ,যুক্তরাষ্ট্রঃ বিশ্বব্যাপী মহামারি করোনা ভাইরাসের ভয়াল তাণ্ডব শুরুর পর থেকে শীর্ষ ১০ ধনী ব্যক্তির সম্পদের পরিমাণ দ্বিগুণ হয়েছে। আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা (অক্সফাম) বলছে, বিশ্বের এই শীর্ষ ১০ ধনীর বর্তমান সম্পদের পরিমাণ ১ দশমিক ৫ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার।

এতে ধনী ও দারিদ্র্যের ব্যবধান আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। সম্প্রতি এ ধরনের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে সংস্থাটি। কোভিড মহামারি মোকাবিলায় ধনীদের সম্পদের ওপর কর আরোপের অনুরোধও জানায় সংস্থাটি। তাদের মতে, প্রাণঘাতী ভাইরাসটি বিশ্ব ব্যাংকের তথ্যে উঠে এসেছে, বিশ্বের ১৬৩ মিলিয়ন অর্থাৎ ১৬ কোটি ৩০ লাখের বেশি মানুষ দরিদ্র্যসীমার নিচে চলে গেছে।

যেখানে ধনীরা আরও ফুলে ফেঁপে উঠেছেন রাষ্ট্রগুলোর সরকারের সহায়তা পেয়ে। অক্সফামের প্রজেক্টের তথ্য বলছে, ২০৩০ সালে ৩ দশমিক ৩ বিলিয়ন অর্থাৎ ৩৩০ কোটি মানুষ দৈনিক ৫ দশমিক ৫০ ডলারের কম আয় করবে। দাতা সংস্থাটি বলছে, বিশ্বের ৯৯ শতাংশ মানুষের আয় ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের অক্টোবর পর্যন্ত কমে গিয়েছিল।

এ দিকে ইলেকট্রিক কার নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান টেসলার প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্কসহ বিশ্বের আরও নয়জন বিলিয়নিয়ারের দৈনিক আয় বেড়েছে এক দশমিক ৩ বিলিয়ন অর্থাৎ ১৩০ কোটি মার্কিন ডলার। ফোর্বস ম্যাগাজিনের এ বছরের ধনীর তালিকার হিসাবে দেখা গেছে, প্রথম ১০ ধনী ব্যক্তির প্রত্যেকের সম্পত্তির পরিমাণ ১০ হাজার কোটি ডলারের বেশি।

তাদের মধ্যে টেসলার মালিক এলন মাস্কের সম্পত্তির পরিমাণই ২৯৪ বিলিয়ন ডলার অর্থাৎ ২৯ হাজার ৪০ কোটি মার্কিন ডলার।জনপ্রিয় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোসকে ছাড়িয়ে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি হন ইলন মাস্ক। এ সময়ের মধ্যে বেজোসের মোট সম্পদ ৬৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ২০৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গের সম্পদ দ্বিগুণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ১১৮ বিলিয়ন ডলার। আর মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসের সম্পদ ৩১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩৭ বিলিয়ন ডলার। সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) বার্ষিক বৈঠকের আগে অক্সফাম সাধারণত এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

যদিও চলতি বছরও সেটি মহামারির কারণে স্থগিত করা হয়েছে। ফলে বিশ্বের শীর্ষ ধনী এবং ক্ষমতাবান ব্যক্তিরা উপস্থিত হতে পারছেন না এবারও। সংস্থাটির দাবি, এই অর্থনৈতিক অসমতার কারণে বিভিন্ন ধরনের সংকট দেখা দিয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছেন না দরিদ্র মানুষরা।

ক্ষুধা, লিঙ্গবৈষম্যগত সহিংসতাও বেড়েছে। এর ফলে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবও পড়ছে।অক্সফামের এক শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, বিলিয়নিয়ারদের যখন বিস্ফোরণ ঘটছে, তখন বহু মানুষও দরিদ্র্যসীমার নিচে চলে যাচ্ছে।

ফলে অর্থনীতির ভিত্তি নড়বড়ে হয়ে যাচ্ছে। এটি একটি দুঃখজনক ব্যাপার যে, স্বাস্থ্য ও খাদ্যের প্রয়োজনীয় উপাদানের অভাবে প্রতিনিয়ত বহু মানুষ মারা যাচ্ছে।