ঢাকা ১২:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ ::
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম আইএমও এর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা’র আদর্শ বাস্তবায়ন তরুনদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে নড়াইল-১আসনে আবারো আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন বিএম কবিরুল হক মুক্তি খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা ছিলেন বহুমাত্রিকগুনের অধিকারী : অধ্যাপক ড. এম শমসের আলী ফের নৌকার টিকিট পেলেন রাজী মোহাম্মদ ফখরুল পি‌রোজপু‌রে ফেজবু‌কে স্টাটার্স দি‌য়ে অনার্স পড়ুয়া ছা‌ত্রের আত্মহত্যা যেভাবে জানা যাবে এইচএসসির ফল > How to know HSC result নেত্রকোণা -২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ওমর ফারুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে চাটখিলে যুবলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত দিনব্যাপী গণসংযোগ করলেন নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ্ কুতুবউদ্দিন তালুকদার রুয়েল

লাখো মোমবাতি জ্বেলে ভাষা শহিদদের স্মরণ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:৩৫:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২২ ২৮৯ বার পড়া হয়েছে

লাখো মোমবাতি জ্বেলে ভাষা শহিদদের স্মরণ

দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

সব অন্ধকার’কে পরিহার করে আলোর পথে চলার দৃপ্ত শপথ নিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও অমর একুশ উদযাপনে লাখো মোমবাতি জ্বেলে ভাষা শহিদদের স্মরণ করল নড়াইল’বাসী।

সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় প্রতি বছরের মতো এবারো শহরের শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে (কুরিরডোব মাঠ) এ আয়োজন করা হয়।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভাষা শহীদদের স্মরণে এবারের প্রদীপ প্রজ্বলন আরও আকর্ষণীয় করা হয়। একই সঙ্গে ভাষা দিবসের ৭১তম বার্ষিকীতে ৭১টি রঙিন ফানুস ওড়ানো হয়।

সূর্য ডোবা মুহূর্তে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়, নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর রবিউল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাদিয়া পারভীন, নড়াইল পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরা,জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মলয় কুণ্ডু ও সাধারণ সম্পাদক শরফুল আলম লিটু প্রমুখ বিশিষ্ট’জনেরা মোমবাতি জ্বেলে প্রদীপ প্রজ্বলনের উদ্বোধন করেন। মুহূর্তে অজস্র হাতের আলোর পরশে জ্বলে ওঠে লক্ষ দীপশিখা।

মুহূর্তেই অন্ধ’কার ছাপিয়ে বিশাল শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে শহীদ মিনার, রফিক, শফিক, সালাম, বরকত, জব্বারসহ,বর্ণমালা ও বিভিন্ন ধরনের আলপনা ছাড়াও বাংলাদেশের নানান ঐতিহ্য তুলে ধরা হয় মোমবাতির আলোয়। সন্ধ্যার আগে মোমবাতি প্রজ্বলনে কয়েক হাজার স্বেচ্ছা’সেবক অংশগ্রহণ করেন।

সন্ধ্যায় লাখো মোমবাতি জ্বেলে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি ?…’ গানের মধ্য দিয়ে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের গণসংগীত শুরু হয়। ব্যতিক্রমী এই আয়োজন’কে ঘিরে বেলা গড়াতেই আয়োজন স্থলে উৎসবের আমেজে মানুষের ঢল নামে।

নান্দনিক এ অনুষ্ঠানটি জেলা ও জেলার বাইরের হাজার হাজার দর্শক উপভোগ করেন। প্রজ্বলিত মোমের মায়াবী আলো-আঁধারিতে সৃষ্টি হয় এক অন্য রকম আবহ।

একই সঙ্গে স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনা’য় গণসংগীত ক্ষণিকের জন্য মোহিত করে তোলে দর্শক-শ্রোতাদের। অভূতপূর্ব এক অনুভূতি ছুঁয়ে যায় সবাইকে।

প্রসঙ্গত, ভাষা শহীদ’দের স্মরণে ১৯৯৮ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ব্যতিক্রমী এই আয়োজন শুরু হয়। প্রথমবার নড়াইলের সুলতান মঞ্চ চত্বরসহ শহরের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ১০ হাজার মোমবাতি প্রজ্বলন করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

লাখো মোমবাতি জ্বেলে ভাষা শহিদদের স্মরণ

আপডেট সময় : ১২:৩৫:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২২

সব অন্ধকার’কে পরিহার করে আলোর পথে চলার দৃপ্ত শপথ নিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও অমর একুশ উদযাপনে লাখো মোমবাতি জ্বেলে ভাষা শহিদদের স্মরণ করল নড়াইল’বাসী।

সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় প্রতি বছরের মতো এবারো শহরের শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে (কুরিরডোব মাঠ) এ আয়োজন করা হয়।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভাষা শহীদদের স্মরণে এবারের প্রদীপ প্রজ্বলন আরও আকর্ষণীয় করা হয়। একই সঙ্গে ভাষা দিবসের ৭১তম বার্ষিকীতে ৭১টি রঙিন ফানুস ওড়ানো হয়।

সূর্য ডোবা মুহূর্তে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়, নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর রবিউল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাদিয়া পারভীন, নড়াইল পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরা,জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মলয় কুণ্ডু ও সাধারণ সম্পাদক শরফুল আলম লিটু প্রমুখ বিশিষ্ট’জনেরা মোমবাতি জ্বেলে প্রদীপ প্রজ্বলনের উদ্বোধন করেন। মুহূর্তে অজস্র হাতের আলোর পরশে জ্বলে ওঠে লক্ষ দীপশিখা।

মুহূর্তেই অন্ধ’কার ছাপিয়ে বিশাল শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে শহীদ মিনার, রফিক, শফিক, সালাম, বরকত, জব্বারসহ,বর্ণমালা ও বিভিন্ন ধরনের আলপনা ছাড়াও বাংলাদেশের নানান ঐতিহ্য তুলে ধরা হয় মোমবাতির আলোয়। সন্ধ্যার আগে মোমবাতি প্রজ্বলনে কয়েক হাজার স্বেচ্ছা’সেবক অংশগ্রহণ করেন।

সন্ধ্যায় লাখো মোমবাতি জ্বেলে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি ?…’ গানের মধ্য দিয়ে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের গণসংগীত শুরু হয়। ব্যতিক্রমী এই আয়োজন’কে ঘিরে বেলা গড়াতেই আয়োজন স্থলে উৎসবের আমেজে মানুষের ঢল নামে।

নান্দনিক এ অনুষ্ঠানটি জেলা ও জেলার বাইরের হাজার হাজার দর্শক উপভোগ করেন। প্রজ্বলিত মোমের মায়াবী আলো-আঁধারিতে সৃষ্টি হয় এক অন্য রকম আবহ।

একই সঙ্গে স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনা’য় গণসংগীত ক্ষণিকের জন্য মোহিত করে তোলে দর্শক-শ্রোতাদের। অভূতপূর্ব এক অনুভূতি ছুঁয়ে যায় সবাইকে।

প্রসঙ্গত, ভাষা শহীদ’দের স্মরণে ১৯৯৮ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ব্যতিক্রমী এই আয়োজন শুরু হয়। প্রথমবার নড়াইলের সুলতান মঞ্চ চত্বরসহ শহরের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ১০ হাজার মোমবাতি প্রজ্বলন করা হয়।