ঢাকা ০৩:১২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ ::
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম আইএমও এর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা’র আদর্শ বাস্তবায়ন তরুনদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে নড়াইল-১আসনে আবারো আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন বিএম কবিরুল হক মুক্তি খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা ছিলেন বহুমাত্রিকগুনের অধিকারী : অধ্যাপক ড. এম শমসের আলী ফের নৌকার টিকিট পেলেন রাজী মোহাম্মদ ফখরুল পি‌রোজপু‌রে ফেজবু‌কে স্টাটার্স দি‌য়ে অনার্স পড়ুয়া ছা‌ত্রের আত্মহত্যা যেভাবে জানা যাবে এইচএসসির ফল > How to know HSC result নেত্রকোণা -২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ওমর ফারুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে চাটখিলে যুবলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত দিনব্যাপী গণসংযোগ করলেন নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ্ কুতুবউদ্দিন তালুকদার রুয়েল

সম্পর্কের টানে হার মেনেছে কাঁটাতারের বেড়া

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:০৫:৫৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ৫ অক্টোবর ২০২২ ১৬১ বার পড়া হয়েছে

কাঁটা তারের বেড়া দুই বাংলাকে আলাদা করলেও আমাদের মনকে ভাগ করতে পারেনি

দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
মোঃআব্দুস সাওার, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের হিলি সীমান্তের চেকপোস্ট গেট এলাকায় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ভারত ও বাংলাদেশের মানুষের পদচারনায় মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে।
 সীমান্তের নোম্যান্স ল্যান্ডের অদূরে প্রিয় মানুষকে  এক নজর দেখতে দুপারে ভিড় করছেন শত শত নারী পুরুষ। তাদের কেউ আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে দেখা করতে এসেছেন। কেউবা পুজাদেখতে এসেছেন।
 এদিকে শারদীয় দূর্গাপুজা উপলক্ষে দুই দেশের পাসপোর্টধারী যাত্রী পারাপারের সংখ্যা ও বেড়েছে দ্বিগুন।
তবে এবারে বিজিবি ও বিএসএফের কঠোর নজর দারি রয়েছে।
অপরদিকে ভারতের অভ্যন্তরেও বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শনার্থীরা আসছেন বাংলাদেশের পুজা দেখতে। কিন্তু সীমান্তে কাঁটা তারের বেড়া এবং বিজিবি ও বিএসএফের কঠোর মনোভাব বাধ সাধে তাদের।
তবে নোম্যান্স ল্যান্ডের অদূরে দুই পাশে দাঁড়িয়ে ভারত ও বাংলাদেশের দর্শনার্থীরা একে অপরকে দেখছে ও ছবি তুলে আনন্দ উপভোগ করছে তারা।
হিলি চেকপোস্টে আসা দর্শনার্থীরা জানান,সীমান্তে কাঁটা তারের বেড়া দিয়ে দুই বাংলাকে ভাগ করে দিলেও আমাদের মনকে তো আর ভাগ করতে পারেনি,আগে তো দুই বাংলা একই ছিল। তাই ভালোবাসার টানে, প্রাণের টানে, নাড়ির টানে তারা ছুটে এসেছেন সীমান্তে। ভারতে তাদের অনেক আত্মীয় স্বজন  রয়েছে। দীর্ঘ দিন পর সীমান্তে দুর থেকে এক নজর স্বজনদের সাথে দেখা হয়েছে।
তবে পাসপোর্ট ও ভিসা যাদের তারাই কেবল সীমান্তে এপার-ওপার হয়ে স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে পারছেন। যাদের পাসপোর্ট ভিসা নেই তারা কেবল দুর থেকে আত্মীয় স্বজনকে দেখছেন। তবে তাদের দাবি যদি একটু ভিতরে যেতে দিতো তাহলে ভিতরে গিয়ে প্রতিমা দেখা যেতো এছাড়া সবার সঙ্গে দেখা করা যেতো এবং মন খুলে কথা বলো যেতো।
হিলি ইমিগ্রেশন ওসি বদিউজ্জামান জানান,হিন্দু ধর্মাবলাম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপুজা উপলক্ষে ভারত থেকে অনেক হিন্দু ধর্মাবলম্বী দর্শনার্থী বাংলাদেশে পুজা দেখতে আসছেন।আবার অনেকের আত্মীয়ের বাড়ি রয়েছে বাংলাদেশে। সে কারণেও তারা বাংলাদেশে পুজা করতে আসছেন।অপরদিকে বাংলাদেশ থেকেও অনেক যাত্রী ভারতে পুজা দেখতে এবং তাদের আত্মিয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছেন। একারণে হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে যাত্রী পারাপার বৃদ্ধি  পেয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

সম্পর্কের টানে হার মেনেছে কাঁটাতারের বেড়া

আপডেট সময় : ০৭:০৫:৫৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ৫ অক্টোবর ২০২২
মোঃআব্দুস সাওার, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের হিলি সীমান্তের চেকপোস্ট গেট এলাকায় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ভারত ও বাংলাদেশের মানুষের পদচারনায় মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে।
 সীমান্তের নোম্যান্স ল্যান্ডের অদূরে প্রিয় মানুষকে  এক নজর দেখতে দুপারে ভিড় করছেন শত শত নারী পুরুষ। তাদের কেউ আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে দেখা করতে এসেছেন। কেউবা পুজাদেখতে এসেছেন।
 এদিকে শারদীয় দূর্গাপুজা উপলক্ষে দুই দেশের পাসপোর্টধারী যাত্রী পারাপারের সংখ্যা ও বেড়েছে দ্বিগুন।
তবে এবারে বিজিবি ও বিএসএফের কঠোর নজর দারি রয়েছে।
অপরদিকে ভারতের অভ্যন্তরেও বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শনার্থীরা আসছেন বাংলাদেশের পুজা দেখতে। কিন্তু সীমান্তে কাঁটা তারের বেড়া এবং বিজিবি ও বিএসএফের কঠোর মনোভাব বাধ সাধে তাদের।
তবে নোম্যান্স ল্যান্ডের অদূরে দুই পাশে দাঁড়িয়ে ভারত ও বাংলাদেশের দর্শনার্থীরা একে অপরকে দেখছে ও ছবি তুলে আনন্দ উপভোগ করছে তারা।
হিলি চেকপোস্টে আসা দর্শনার্থীরা জানান,সীমান্তে কাঁটা তারের বেড়া দিয়ে দুই বাংলাকে ভাগ করে দিলেও আমাদের মনকে তো আর ভাগ করতে পারেনি,আগে তো দুই বাংলা একই ছিল। তাই ভালোবাসার টানে, প্রাণের টানে, নাড়ির টানে তারা ছুটে এসেছেন সীমান্তে। ভারতে তাদের অনেক আত্মীয় স্বজন  রয়েছে। দীর্ঘ দিন পর সীমান্তে দুর থেকে এক নজর স্বজনদের সাথে দেখা হয়েছে।
তবে পাসপোর্ট ও ভিসা যাদের তারাই কেবল সীমান্তে এপার-ওপার হয়ে স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে পারছেন। যাদের পাসপোর্ট ভিসা নেই তারা কেবল দুর থেকে আত্মীয় স্বজনকে দেখছেন। তবে তাদের দাবি যদি একটু ভিতরে যেতে দিতো তাহলে ভিতরে গিয়ে প্রতিমা দেখা যেতো এছাড়া সবার সঙ্গে দেখা করা যেতো এবং মন খুলে কথা বলো যেতো।
হিলি ইমিগ্রেশন ওসি বদিউজ্জামান জানান,হিন্দু ধর্মাবলাম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপুজা উপলক্ষে ভারত থেকে অনেক হিন্দু ধর্মাবলম্বী দর্শনার্থী বাংলাদেশে পুজা দেখতে আসছেন।আবার অনেকের আত্মীয়ের বাড়ি রয়েছে বাংলাদেশে। সে কারণেও তারা বাংলাদেশে পুজা করতে আসছেন।অপরদিকে বাংলাদেশ থেকেও অনেক যাত্রী ভারতে পুজা দেখতে এবং তাদের আত্মিয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছেন। একারণে হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে যাত্রী পারাপার বৃদ্ধি  পেয়েছে।