ঢাকা ০৭:০২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ ::
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম আইএমও এর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা’র আদর্শ বাস্তবায়ন তরুনদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে নড়াইল-১আসনে আবারো আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন বিএম কবিরুল হক মুক্তি খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা ছিলেন বহুমাত্রিকগুনের অধিকারী : অধ্যাপক ড. এম শমসের আলী ফের নৌকার টিকিট পেলেন রাজী মোহাম্মদ ফখরুল পি‌রোজপু‌রে ফেজবু‌কে স্টাটার্স দি‌য়ে অনার্স পড়ুয়া ছা‌ত্রের আত্মহত্যা যেভাবে জানা যাবে এইচএসসির ফল > How to know HSC result নেত্রকোণা -২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ওমর ফারুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে চাটখিলে যুবলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত দিনব্যাপী গণসংযোগ করলেন নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ্ কুতুবউদ্দিন তালুকদার রুয়েল

বিএনপি আগামী ৫০ বছরও ক্ষমতায় আসতে পারবেনা : হানিফ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:৫৪:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৫ মার্চ ২০২২ ১৯৯ বার পড়া হয়েছে

বিএনপি আগামী ৫০ বছরও ক্ষমতায় আসতে পারবেনা : হানিফ

দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

এহসানুল হক রিপনঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গণে আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় তিনি এই কথা বলেন একের পর এক ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি দিয়ে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা তারা (বিএনপি) অব্যাহত রেখেছে।

কারণ তারা জানে উন্নয়ন অগ্রগতির ধারা যদি অব্যাহত থাকে এ দেশের জনগণ সবসময় শেখ হাসিনার প্রতি আস্থাশীল থাকবে। আগামি ৫০ বছরেও বিএনপির রাষ্ট্রের ক্ষমতায় আসার কোনো সুযোগ নেই।

এ কারণে তারা হতাশ। আর হতাশ হয়েই তারা নানা ধরনের মিথ্যাচার করে রাস্তায় নামছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, কিছুদিন আগে বিএনপির নেতারা বললেন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে, রাজনৈতিক কর্মসূচিও দেওয়া শুরু করলেন।

তারা বিএনপি নেত্রীর মুক্তি চাইলেন। খালেদা জিয়া একজন দণ্ডপ্রাপ্ত কয়েদি। কারা বিধান অনুযায়ী তিনি সকল সুযোগ সুবিধা পেয়ে যাচ্ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর মানবিক দিক বিবেচনায় তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে বাসায় চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

এরপর বিএনপি নেতারা দাবি করলেন, খালেদা জিয়া জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে, তাকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে হবে। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে এখন বাড়িতে আছেন।তারা নতুন ইস্যু তৈরি করলেন নির্বাচন কমিশন নিয়ে। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর নির্বাচন কমিশন গঠনে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সর্বোচ্চ পন্থা অবলম্বন করেছেন।

আমাদের দেশে যেহেতু নির্বাচন কমিশন আইন ছিল না, রাষ্ট্রপতি সব দলের সঙ্গে আলোচনা করলেন। পরামর্শ করে তাদের দেওয়া নামের ভিত্তিতে সার্চ কমিটি গঠন করে; সার্চ কমিটির নামগুলো যাচাই-বাছাই করে নির্বাচন কমিশন গঠন করেছেন। এটাই ছিল গণতান্ত্রিক পদ্ধতির সবচেয়ে উত্তম পন্থা।

বিএনপি তখন বেঁকে বসলো, তারা আলোচনায় অংশগ্রহণ করলেন না। দাবি করলেন নির্বাচন কমিশন আইনের। নির্বাচন কমিশন আইন সংসদে উত্থাপিত হলো। সেখানে তাদের দেওয়া ২২টি বিষয়ে সংশোধন করা হলো। ইতোপূর্বে বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন নজির নেই, যেখানে বিরোধী দলের আপত্তি করা এতগুলো বিষয় সংশোধন করা হয়েছে।

তারা সকালে এক কথা বলে, দুপুরে আরেক কথা বলে, দুপুরে বললে রাতে আরেক কথা বলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিশেষ বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এবং ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয় সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী।

আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনের সংসদ সদস্য বি এম ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনের সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুল, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম শিউলি আজাদ। বর্ধিত সভা সঞ্চালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

বিএনপি আগামী ৫০ বছরও ক্ষমতায় আসতে পারবেনা : হানিফ

আপডেট সময় : ০৭:৫৪:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৫ মার্চ ২০২২

এহসানুল হক রিপনঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গণে আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় তিনি এই কথা বলেন একের পর এক ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি দিয়ে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা তারা (বিএনপি) অব্যাহত রেখেছে।

কারণ তারা জানে উন্নয়ন অগ্রগতির ধারা যদি অব্যাহত থাকে এ দেশের জনগণ সবসময় শেখ হাসিনার প্রতি আস্থাশীল থাকবে। আগামি ৫০ বছরেও বিএনপির রাষ্ট্রের ক্ষমতায় আসার কোনো সুযোগ নেই।

এ কারণে তারা হতাশ। আর হতাশ হয়েই তারা নানা ধরনের মিথ্যাচার করে রাস্তায় নামছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, কিছুদিন আগে বিএনপির নেতারা বললেন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে, রাজনৈতিক কর্মসূচিও দেওয়া শুরু করলেন।

তারা বিএনপি নেত্রীর মুক্তি চাইলেন। খালেদা জিয়া একজন দণ্ডপ্রাপ্ত কয়েদি। কারা বিধান অনুযায়ী তিনি সকল সুযোগ সুবিধা পেয়ে যাচ্ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর মানবিক দিক বিবেচনায় তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে বাসায় চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

এরপর বিএনপি নেতারা দাবি করলেন, খালেদা জিয়া জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে, তাকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে হবে। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে এখন বাড়িতে আছেন।তারা নতুন ইস্যু তৈরি করলেন নির্বাচন কমিশন নিয়ে। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর নির্বাচন কমিশন গঠনে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সর্বোচ্চ পন্থা অবলম্বন করেছেন।

আমাদের দেশে যেহেতু নির্বাচন কমিশন আইন ছিল না, রাষ্ট্রপতি সব দলের সঙ্গে আলোচনা করলেন। পরামর্শ করে তাদের দেওয়া নামের ভিত্তিতে সার্চ কমিটি গঠন করে; সার্চ কমিটির নামগুলো যাচাই-বাছাই করে নির্বাচন কমিশন গঠন করেছেন। এটাই ছিল গণতান্ত্রিক পদ্ধতির সবচেয়ে উত্তম পন্থা।

বিএনপি তখন বেঁকে বসলো, তারা আলোচনায় অংশগ্রহণ করলেন না। দাবি করলেন নির্বাচন কমিশন আইনের। নির্বাচন কমিশন আইন সংসদে উত্থাপিত হলো। সেখানে তাদের দেওয়া ২২টি বিষয়ে সংশোধন করা হলো। ইতোপূর্বে বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন নজির নেই, যেখানে বিরোধী দলের আপত্তি করা এতগুলো বিষয় সংশোধন করা হয়েছে।

তারা সকালে এক কথা বলে, দুপুরে আরেক কথা বলে, দুপুরে বললে রাতে আরেক কথা বলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিশেষ বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এবং ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয় সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী।

আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনের সংসদ সদস্য বি এম ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনের সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুল, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম শিউলি আজাদ। বর্ধিত সভা সঞ্চালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার।